দেবরের মৃত্যুশোক সইতে না পেরে মারা গেলেন সুশান্তের বৌদি

ভারতীয় মিডিয়ার খবর বলছে, সুশান্তের মৃত্যুশোক সইতে না পেরে মারা গেছেন সুধাদেবী নামে তার এক বৌদি। অভিনেতার আত্মহত্যার খবর বিহারের পূর্ণিয়া জেলায় নিজ বাড়িতে পৌঁছানোর পর থেকেই শোকে ভেঙে পড়েছিলেন তিনি। খাওয়া-দাওয়া বন্ধ করে দিয়েছিলেন।

দেবরের মৃত্যুশোক সইতে না পেরে মারা গেলেন সুশান্তের বৌদি
ছবি : সংগৃহীত দেবরের মৃত্যুশোক সইতে না পেরে মারা গেলেন সুশান্তের বৌদি

রবিবার গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন বলিউডের তরুণ তুর্কী সুশান্ত সিং রাজপুত। ফরেনসিক প্রতিবেদনেও তার মৃত্যুকে আত্মহত্যা বলে উল্লেখ করা হয়েছে। অভিনেতার এমন অকালে চলে যাওয়া মেনে নিতে পারেননি কেউই। সোশ্যাল মিডিয়া ভরে গেছে বলিউড তারকাদের শোকবার্তায়। একজন তো শোকে জীবনই হারালেন।

ভারতীয় মিডিয়ার খবর বলছে, সুশান্তের মৃত্যুশোক সইতে না পেরে মারা গেছেন সুধাদেবী নামে তার এক বৌদি। অভিনেতার আত্মহত্যার খবর বিহারের পূর্ণিয়া জেলায় নিজ বাড়িতে পৌঁছানোর পর থেকেই শোকে ভেঙে পড়েছিলেন তিনি। খাওয়া-দাওয়া বন্ধ করে দিয়েছিলেন।

খবরে বলা হয়েছে, সোমবার রাতে মুম্বাইয়ে যখন সুশান্তের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া চলছিল, ঠিক তখন বিহারের বাড়িতে হঠাৎ‌ অসুস্থ হয়ে মারা যান সুধাদেবী। সুশান্তের মৃত্যুশোকের ধাক্কাতেই তিনি মারা গেছেন বলে পরিবার সূত্রে জানানো হয়েছে। এই সুধাদেবী ছিলেন সম্পর্কে অভিনেতা সুশান্তের এক তুতো দাদার স্ত্রী।

রবিবার দুপুরে টিভির পর্দা থেকেই পরিবার জানতে পারেন, সুশান্তের আত্মহত্যার খবর। এরপরেই যেনো শোক নেমে আসে  সুশান্তের আদি বাড়ি বিহারের পূর্ণিয়া জেলায়। সেখানেই কেটেছে তাঁর শৈশব। বিহারের সেই বাড়িতেই থাকতেন সুশান্তের দাদার স্ত্রী সুধা দেবী। মুম্বাইতে সুশান্তের শেষকৃত্যের সময়ই নাকি মৃত্যু হয়েছে বৌদি সুধা দেবীর। প্রিয় দেবরের অকাল মৃত্যু কিছুতেই মেনে নিতে পারছিলেন না তিনি।

উল্লেখ্য, মুম্বাইয়ে বান্দ্রার ফ্ল্যাটে একাই থাকতেন সুশান্ত। রবিবার সকালে অভিনেতার দেহ সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ঝুলতে দেখে পুলিশে খবর দেন তার গৃহপরিচারক। পরে পুলিশ এসে মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাতপাতালে পাঠায়। সোমবার ময়নাতদন্তের প্রতিবেদনে জানানো হয়, অবসাদগ্রস্ত হয়ে আত্মহত্যা করেছেন সুশান্ত।

সূএ কালেরকন্ঠ