ছাতকে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ মানুষকে দেয়া হচ্ছে পর্যাপ্ত ত্রাণ সহায়তা:সিলেট বিভাগীয় কমিশনার

জুনেদ আহমদ (রুনু),ছাতক প্রতিনিধি:: সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার মোঃমশিউর রহমান বলেছেন,বন্যা দূর্গতদের জন্য সরকারি পর্যাপ্ত ত্রাণ সহযোগিতা বিভিন্ন ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ মানুষদের মাঝে বিতরণ হচ্ছে।

ছাতকে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ মানুষকে দেয়া হচ্ছে পর্যাপ্ত ত্রাণ সহায়তা:সিলেট বিভাগীয় কমিশনার
ছবি : banglarkagoj.com

সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার মোঃমশিউর রহমান বলেছেন,বন্যা দূর্গতদের জন্য সরকারি পর্যাপ্ত ত্রাণ সহযোগিতা বিভিন্ন ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ মানুষদের মাঝে বিতরণ হচ্ছে। তিনি আরো বলেন,করোনা ভাইরাসের কালে মাস্ক ব্যবহারে সবাইকে উদ্যোগী করতে হবে। প্রয়োজনে জেল জরিমানার আওতায় এনে মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে৷

আসন্ন কোরবানীর ঈদে পশুর হাটে সীমিত আকারে লোকজনের আসা যাওয়ার ব্যবস্থা সহ প্রয়োজনে অন্যান্য বছরের তুলনায় পশু বিক্রির হাট বৃদ্ধি করার পরামর্শ দিয়ে তিনি আরো বলেন হাটে সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে এবং ইজারাদাদেরও এর ব্যবস্থা হাটে-হাটে নিতে হবে।

মঙ্গলবার সকালে ছাতক উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সাথে কোভিড-১৯ ও বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে অনুষ্ঠিত এক মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন। উপজেলা পরিষদ হলরুমে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃগোলাম কবিরের সভাপতিত্বে এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

মতবিনিময় সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্তিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান, সিনিয়র এএসপি ছাতক সার্কেল বিল্লাল হোসেন, সহকারী কমিশনার (ভূমি) তাপস শীল, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা.রাজীব চক্রবর্তী, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান লিপি বেগম।

সভায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা তৌফিক হোসেন খান, উপজেলা ইঞ্জিনিয়ার আবুল মনসুর মিয়া, ছাতক টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ রতন কুমার পন্ডিত, সাব রেজিস্ট্রার আব্দুল করিম ধলা মিয়া, প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডা.সুমন আচার্য্য, পৌরসভার সচিব আবু জর গিফারী, সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা মাসুদ জামান, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা কেএম মাহবুবুর রহমান, সমাজসেবা কর্মকর্তা শাহ মশিউর রহমান, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা পুলিন চন্দ্র রায়, প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মানিক চন্দ্র দাস, সমবায় কর্মকর্তা মতিউল ইসলাম, উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় ছাতক আঞ্চলিক শাখার উপ পরিচালক সিদ্দিকুর রহমান, যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা গোপাল চন্দ্র দে, পরিসংখ্যান কর্মকর্তা মাসুদ সরকার, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী মিজানুর রহমান, ইউআরসি ইন্সট্রাক্টর মোস্তফা আহসান হাবিব, খাদ্য নিয়ন্ত্রক সাহাব উদ্দিন, আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা শফিকুর রহমান, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের একাডেমিক সুপারভাইজার সুয়েব আহমদ, নির্বাচন কর্মকর্তা ফয়েজুর রহমান, আমার বাড়ী আমার খামারের প্রকল্প কর্মকর্তা জুলকার নাইন,পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা (বিত্তহীন) প্রণব লাল রায়, ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল হেকিম, পৌর কাউন্সিলর ধন মিয়া প্রমুখ।