চারিদিকে মৃত্যুর মিছিল,এর মধ্যে আবার কি শুনছি কন্ঠ শিল্পী ইমন খান banglarkagoj

মোঃ আতিকুল ইসলাম আপন। ২৬ শে এপ্রিল নাকি গার্মেন্টস ফ্যাক্টরী গুলো ফের চালু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। লক্ষ লক্ষ গার্মেন্টস শ্রমিক আবারও ঢাকা নারায়ণগঞ্জ সহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে।

চারিদিকে মৃত্যুর মিছিল,এর মধ্যে আবার কি শুনছি কন্ঠ শিল্পী ইমন খান banglarkagoj
ছবি : banglarkagoj.com

২৬ শে এপ্রিল নাকি গার্মেন্টস ফ্যাক্টরী গুলো ফের চালু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। লক্ষ লক্ষ গার্মেন্টস শ্রমিক আবারও ঢাকা নারায়ণগঞ্জ সহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে।

তাহলে কি ভেবে নিবো,"করোনা"আমাদের দেশ ও দেশের মানুষদেরকে মাফ করে দিলো? দেশের সব লকডাউন কি সরকার প্রশাসন তুলে নিলো? কি হচ্ছে এসব? কিছুই বুঝতে পারছিনা। সরকার,প্রশাসন, এবং গার্মেন্টস মালিকদেরকে অনুরোধ করবো। এবার কোন সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে ভেবে চিন্তে নিবেন। আপনাদের প্রথম ভুলে "করোনা" মুটামুটি প্রায় ৬৪ টি জেলায় ছড়িয়েছে। দ্বিতীয় ভুলে যেনো ৬৮ হাজার গ্রামবাংলার ঘরে ঘরে "করোনা" না ছড়ায়। প্লিজ আমরা বাঁচতে চাই,স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে চাই।


#ইদানীং বিভিন্ন মাধ্যমে পরিচিত,অপরিচিত,অনেক মানুষের মৃত্যুর খবর শুনছি ও দেখছি। এইসব দুঃখের খবর শুনতে শুনতে আজ নিজেকেই কেন জানি বড় অসহায় মনে হচ্ছে। দিনদিন কেমন পাল্টে যাচ্ছি আমরা। পাল্টে যাচ্ছে আমাদের আচার-আচরণ। এইতো সেদিনও আমরা ভালোবাসার মানুষ গুলো সবাই একসাথে কত কথা,কত গান,কত আড্ডায় মেতে ছিলাম। আত্নার সম্পর্ক আমাদের।

কিন্তু কি আশ্চর্য দেখেছেন? আজ আমরা সবাই যে যার ঘর বন্দী হয়ে আছি। ইচ্ছে থাকা সত্ত্বেও কেউ কাউকে কাছে টানছিনা। খুব জরুরী প্রয়োজনেও কেউ কারো সাথে দেখা করতে চাইনা। কেউ কেউ দেখা করলেও,আগের মতো হাতে-হাত,বুকে-বুক মিলিয়ে কথা বলতে সাহস পাচ্ছিনা। দূরত্ব বজায় রেখে কথা বলতে হচ্ছে। তখন নিজের কাছে মনে হয় দু'জনই আমরা হিংস্র কোন প্রাণী দাঁড়িয়ে আছি মুখোমুখি ৷

যখন তখন একজন অন্যজনকে আক্রমণ করতে পারে। প্রয়োজনের বাইরে ২/৪ মিনিট বেশি কথা বলতেও চাচ্ছিনা। মনে মনে ভাবি তাড়াতাড়ি এখান থেকে সরতে পারলে বাঁচি৷ আহারে জীবন!! মানতে হবে সবই বিধাতার খেলা। আমরা কি কেউ কখনো ভেবেছিলাম এমন একটি কষ্টদায়ক মুহুর্ত আমাদের পারতে করতে হবে? না কখনো ভাবিনি। এটা কল্পনার অতীত ছিলো আমাদের।

আল্লাহ্ মাফ করুক,সামনে আমাদের জন্য এর চেয়েও আরও ভয়ংকর কিছু অপেক্ষা করছে কিনা,সেটাই ভাবছি। আসুন আমরা সবাই আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাই,আল্লাহ'কে ডাকি। কারন একমাত্র তিনিই পারেন এই মহামারী "করোনা"থেকে আমাদের সবাইকে রক্ষা করতে। মানুষ মাত্রই মরণশীল" প্রত্যেকটি মানুষকে একদিন না একদিন মরণের স্বাদ গ্রহণ করতে হবে। এটাই সত্যে। আমিও যেকোন সময় আপনাদের মাঝ থেকে চিরবিদায় নিতে পারি।

হয়তো তখন ক্ষমা চাওয়ারও সুযোগ থাকবেনা। তাই আমি আপনাদের সকলের কাছে আজ ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি। আমি আমার চলার পথে যদি কোন ভুলত্রুটি করে থাকি,আপনাদের কারো মনে জেনেশুনে বা মনের অজান্তে কোন কষ্ট দিয়ে থাকি। তাহলে আমাকে সবাই ক্ষমা করে দিবেন!! আমিন--
*হে আল্লাহ্ আপনি আমাদের "করোনা"থেকে মুক্তি দিন।
#সবাই ভালো থাকুন,সুস্থ থাকুন,সুন্দর থাকুন,নিরাপদে থাকুন, এবং সাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মবিধি মেনে ঘরেই থাকুন। ধন্যবাদ সবাইকে।