খাশোগি হত্যার প্রধান সন্দেহভাজন সৌদি যুবরাজ: জাতিসংঘ

সৌদি অভিযুক্ত দুই ডজন ব্যক্তির অনুপস্থিতিতে তুরস্ক যে বিচার পরিচালনা করছে সে সম্পর্কে জাতিসংঘের এ কর্মকর্তা বলেন, এটি পরিষ্কার যে, রিয়াদ সরকার এসব ব্যক্তিকে আদালতে উপস্থিত হতে দেবে না। সে কারণে তুরস্কের এ বিচার প্রক্রিয়ার বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে।

খাশোগি হত্যার প্রধান সন্দেহভাজন সৌদি যুবরাজ: জাতিসংঘ
ছবি: সংগৃহীত

সৌদি অভিযুক্ত দুই ডজন ব্যক্তির অনুপস্থিতিতে তুরস্ক যে বিচার পরিচালনা করছে সে সম্পর্কে জাতিসংঘের এ কর্মকর্তা বলেন, এটি পরিষ্কার যে, রিয়াদ সরকার এসব ব্যক্তিকে আদালতে উপস্থিত হতে দেবে না। সে কারণে তুরস্কের এ বিচার প্রক্রিয়ার বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে।

জাতিসংঘের বিশেষ দূত ও বিচারবহির্ভূত হত্যা বিষয়ক বিশেষজ্ঞ অ্যাগনেস ক্যালামার্ড গতকাল তুর্কি বার্তা সংস্থা আনাদুলু এজেন্সিকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে বলেছেন, ওয়াশিংটন পোস্ট পত্রিকার সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যায় মূলত দায়ী সৌদি আরবের যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান।

তিনি বলেন, আমি মনে করি, তিনিই ইঙ্গিত দিয়েছিলেন বা তিনিই নির্দেশ দিয়েছিলেন। তার নির্দেশনা ছাড়া এমন হত্যাকাণ্ড সম্ভব নয়। অ্যাগনেস ক্যালামার্ড বলেন, এক বছরের বেশি সময় আগে যে তথ্য দেয়া হয়েছিল সে অনুসারে আমি বিশ্বাস করি যে, মার্কিন কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ’র কাছেও এ তথ্য আছে।

গত বছরের ডিসেম্বরে সৌদি আরবের একটি আদালতে খাশোগি হত্যা মামলায় সংশ্লিষ্ট অন্তত পাঁচজনকে মৃত্যুদণ্ড এবং তিনজকে কারাদণ্ড সাজা দেয়া হয়। কিন্তু পরবর্তীতে খাশোগির পরিবার বলেছে, তারা খুনীদের ক্ষমা করে দিয়েছে। সৌদির আইন অনুযায়ী আনুষ্ঠানিকভাবে তাদের মুক্তি কার্যকরে অনুমোদন দেয়া হয়।

উল্লেখ্য ২০১৮ সালের অক্টোবরে তুরস্কের ইস্তানবুল শহরের সৌদি কনস্যুলেটের ভেতর নির্মমভাবে খুন করা হয় প্রখ্যাত সৌদি সাংবাদিক জামাল খাশোগিকে। একসময় সৌদি রাজপরিবারের ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত হলেও পরে তিনি রাজতন্ত্রের কঠোর সমালোচকে পরিণত হয়েছিলেন। এ কারণেই তাকে প্রাণ দিতে হয় বলে দাবি তার পরিবারের।

সূএ সময়েরকন্ঠসর